মসীহ অভ্যন্তরীণ পরিচ্ছনতার উপরে শিক্ষা দেন

বিশুদ্ধ হওয়া কতটা গুরুত্বপূর্ণ? সুরাহ আন-নিসা (সুরাহ 4 – স্ত্রীলোক) বলে

হে ঈমাণদারগণ! তোমরা যখন নেশাগ্রস্ত থাক, তখন নামাযের ধারে-কাছেও যেওনা, যতক্ষণ না বুঝতে সক্ষম হও যা কিছু তোমরা বলছ, আর (নামাযের কাছে যেও না) ফরয গোসলের আবস্থায়ও যতক্ষণ না গোসল করে নাও। কিন্তু মুসাফির অবস্থার কথা স্বতন্ত্র আর যদি তোমরা অসুস্থ হয়ে থাক কিংবা সফরে থাক অথবা তোমাদের মধ্য থেকে কেউ যদি প্রস্রাব-পায়খানা থেকে এসে থাকে কিংবা নারী গমন করে থাকে, কিন্তু পরে যদি পানিপ্রাপ্তি সম্ভব না হয়, তবে পাক-পবিত্র মাটির দ্বারা তায়াম্মুম করে নাও-তাতে মুখমন্ডল ও হাতকে ঘষে নাও। নিশ্চয়ই আল্লাহ তা’আলা ক্ষমাশীল। 

সুরাহ আন-নিসা 4:43

সুরাহ আন-নিসার নির্দেশ হ’ল নামাজের আগে আমাদের মুখ ও হাতকে খাঁটি পৃথিবী দিয়ে পরিষ্কার করা I বাহ্যিক বিশুদ্ধতা গুরুত্বপূর্ণ I

সুরাহ-আশ-শামস (সুরাহ 91 – সূর্য) আমাদের বলে যে আমাদের আত্মা – আমাদের অভ্যন্তরীণ আত্মা সমানভাবে গুরুত্বপূর্ণ I

শপথ প্রাণের এবং যিনি তা সুবিন্যস্ত করেছেন, তাঁর,অতঃপর তাকে তার অসৎকর্ম ও সৎকর্মের জ্ঞান দান করেছেনযে নিজেকে শুদ্ধ করে, সেই সফলকাম হয়।এবং যে নিজেকে কলুষিত করে, সে ব্যর্থ মনোরথ হয়। 

রাহ-আশ-শামস 91:7-10

সুরাহ-আশ-শামস আমাদের বলে যে যদি আমাদের আত্মা, বা অন্তর্নিহিত নিজেকে শুদ্ধ করা হয় তখন আমরা সফল হয়ে থাকি, যেখানে আমাদের আত্মা যদি বিকৃত হয় তাহলে আমরা বার্থ হয়েছি I এছাড়াও ঈসা আল মসীহ পিবিইউএইচ অভ্যন্তরীণ এবং বাহ্যিক পরিচ্ছনতার সম্বন্ধে শিক্ষা দিলেন I

আমরা দেখলাম ঈসা আল মসীহর বাক্যের মধ্যে কর্তৃত্বের সাথে শিক্ষা দেওয়া, লোকেদের সুস্থ করা এমনকি প্রকৃতিকে নিয়ন্ত্রণ করার কতটা শক্তি ছিল I তিনি আমাদের হৃদয়ের অবস্থা প্রকাশ করতেও শিখিয়েছিলেন – যাতে আমাদের অন্তর্নিহিত ব্যক্তির পাশাপাশি বাইরের দিকও পরীক্ষা করা যেতে পারে I আমরা বাহ্যিক পরিচ্ছনতার সঙ্গে পরিচিত সেইজনই আজানের পূর্বে উদু অনুষ্ঠিত করা হয় এবং কেন হালালের মাংসের অনুশীলন করা হয় I ভাববাদী মোহম্মদ (পিবিইউএইচ) হাদিথ অনুসারে বললেন যে

 “পরিচ্ছনতা বিশ্বাসের অর্ধেক …”

মুসলিম অনুচ্ছেদ 1 বই 002, নম্বর 0432

এছাড়াও ভাববাদী ঈসা আল মসীহ (পিবিইউএইচ) আমাদের চেয়েছিলেন অন্য  অর্ধেকের সম্বন্ধে ভাবি – সেটি হ’ল আমাদের অভ্যন্তরীণ পরিচ্ছনতা I এটি গুরুত্বপূর্ণ কারণ যদিও মানুষরা অন্য লোকেদের বাহ্যিক পরিচ্ছনতা দেখতে পারে, আল্লাহর জন্য এটি আলাদা – তিনি অভ্যন্তরীণকেও দেখেন I যখন যিহূদদের অন্যতম রাজা যিনি বাহ্যিকভাবে সমস্ত ধার্মিক বাধ্যতাগুলো পালন করলেন, কিন্তু তার অন্তর্নিহিত হৃদয় শুদ্ধ রাখলেন না তখন সেইসময়ের ভাববাদী এই বার্তাটি নিয়ে এলেন:

  9 সমস্ত পৃথিবীতে খুঁজে বেড়ায প্রভুর দৃষ্টি, যে সমস্ত ব্যক্তি তাঁর প্রতি বিশ্বস্ত, তিনি তাদের মধ্য দিয়েই তাঁর ক্ষমতা প্রদর্শন করেন| আসা তুমি মূর্খের মতো কাজ করেছো অতএব এরপর থেকে তোমায় শুধুই যুদ্ধ করে যেতে হবে|”

2 বংশাবলি 16:9

এই বার্তাটির ঘোষণা হিসাবে, অভ্যন্তরীণ পরিচ্ছনতা আমাদের ‘হৃদয়ের’ সাথে সংযুক্ত – যে ‘আপনি’ ভাবে, অনুভব করে, সমর্পণ করে বা অমান্য করে, এবং জিহ্বাকে নিয়ন্ত্রণ করে I যাবুরের ভাববাদী শিক্ষা দিলেন যে এটি আমাদের হৃদয়ের তৃষ্ণা ছিল যা আমাদের পাপের মূল ছিল I আমাদের হৃদয় এতটাই গুরুত্বপূর্ণ যে ঈসা আল মসীহ (পিবিউএইচ) আমাদের বাহ্যিক পরিচ্ছনতার সাথে এর বৈপরীত্যের মাধ্যমে তার শিক্ষার মধ্যে এটির উপরে জোর  দিয়েছিলেন I অভ্যন্তরীণ পরিচ্ছনতার বিষয়ে তিনি যে বিভিন্ন সময়ে শিখিয়েছিলেন ইঞ্জিল এখানে সেইভাবে লিপিবদ্ধ করেছে:

বাইরের পাশাপাশি ভেতরটাকেও পরিষ্কার কর 

(এখানে ‘ফারিসীদের’ সম্বন্ধে উল্লেখ করা হয়েছে I তারা সেই সময়ের যিহূদি শিক্ষক ছিলেন, আজকের ইমামদের অনুরূপ I ঈসা ঈশ্বরের প্রতি একটি ‘দশমাংশ’ দেওয়ার উল্লেখ করেন I এটি যিহূদিদের জন্য প্রয়োজনীয় যাকাত  ছিল I) 

  37 যীশু এই কথা শেষ করলে একজন ফরীশী তার বাড়িতে যীশুকে খাওযার জন্য নিমন্ত্রণ করল৷ তাই তিনি তার বাড়িতে গিয়ে খাবার আসনে বসলেন৷
38 কিন্তু সেই ফরীশী দেখল য়ে খাওযার আগে প্রথা মতো যীশু হাত ধুলেন না৷
39 প্রভু তাকে বললেন, ‘তোমরা ফরীশীরা থালা বাটির বাইরেটা পরিষ্কার কর, কিন্তু ভেতরে তোমরা দুষ্টতা ও লোভে ভরা৷
40 তোমরা মূর্খের দল! তোমরা কি জান না যিনি বাইরেটা করেছেন তিনি ভেতরটাও করেছেন?
41 তাই তোমাদের থালা বাটির ভেতরে যা কিছু আছে তা দরিদ্রদের বিলিয়ে দাও, তাহলে সবকিছুই তোমাদের কাছে সম্পূর্ণ শুচি হয়ে যাবে৷
42 কিন্তু হায়, ফরীশীরা ধিক্ তোমাদের কারণ তোমরা পুদিনা, ধনে ও বাগানের অন্যান্য শাকের দশমাংশ ঈশ্বরের উদ্দেশ্যে উত্‌সর্গ করে থাক, কিন্তু ন্যায়বিচার ও ঈশ্বরের প্রতি প্রেমের বিষয়টি অবহেলা কর৷ কিন্তু প্রথম বিষয়গুলির সঙ্গে সঙ্গে শেষেরগুলিও তোমাদের জীবনে পালন করা কর্তব্য৷
43 ধিক্ ফরীশীরা! তোমরা সমাজ-গৃহে সম্মানিত আসন আর হাটে বাজারে সকলের সশ্রদ্ধ অভিবাদন পেতে কত না ভালবাস৷
44 ধিক্ তোমাদের! তোমরা মাঠের মাঝে মিশে থাকা কবরের মতো, লোকেরা না জেনে যার ওপর দিয়ে হেঁটে যায়৷

লুক 11:37-44

ব্যবস্থা অনুসারে মর্ত দেহকে স্পর্শ করা একজন যিহূদিকে অশুচি করত I যখন ঈসা (পিবিইউএইচ) বললেন যে লোকেরা ‘চিহ্ন বিহীন কবরের’ উপর দিয়ে হেঁটে গেছে বলে তিনি বোঝাতে চাইলেন যে এমনকি ‘এটি জেনেও’ তারা সেগুলো ছাড়া অশুচি ছিল কারণ তারা অভ্যন্তরীণ শুদ্ধতাকে উপেক্ষা করছিল I এটিকে যদি আমরা উপেক্ষা করি আমরা অবিশ্বাসীদের মতন ততটাই অশুচি হতে পারি যাদের কোনো শুচিতার প্রতি শ্রদ্ধা নেই I

হৃদয় ধর্মীয়ভাবে শুদ্ধ ব্যক্তিকে অশুচি করে  

নিম্নলিখিত শিক্ষায়, ঈসা আল মসীহ ভাববাদী যিশাইয় (পিবিইউএইচ) থেকে উদ্ধৃত করেন যিনি 750 খ্রীষ্টপূর্বাব্দে বাস করতেন I (যিশাইয় সম্বন্ধে তথ্যের জন্য এখানে)

  রুশালেম থেকে কয়েকজন ফরীশী ও ব্যবস্থার শিক্ষক যীশুর সঙ্গে দেখা করতে এলেন৷ তাঁরা যীশুকে বললেন,
2 ‘আমাদের পিতৃপুরুষরা য়ে নিয়ম আমাদের দিয়েছেন, আপনার অনুগামীরা কেন তা মেনে চলে না? খাওয়ার আগে তারা ঠিকমতো হাত ধোয় না!’
3 এর উত্তরে যীশু তাঁদের বললেন, ‘তোমাদের পরম্পরাগত আচার পালনের জন্য তোমরাই বা কেন ঈশ্বরের আদেশ অমান্য করো?
4 কারণ ঈশ্বর বলেছেন, ‘তোমরা বাবা-মাকে সম্মান করো৷’আর ‘য়ে কেউ তার বাবা-মার নিন্দা করবে তার মৃত্যুদণ্ড হবে৷’
5 কিন্তু তোমরা বলে থাকো, কেউ যদি তার বাবা কিংবা মাকে বলে, ‘আমি তোমাদের কিছুই সাহায্য করতে পারব না, কারণ তোমাদের দেবার মত যা কিছু সব আমি ঈশ্বরের উদ্দেশ্যে দানস্বরূপ উত্‌সর্গ করেছি,’
6 তবে বাবা মায়ের প্রতি তার কর্তব্য কিছু থাকে না৷ তাই তোমাদের পরম্পরাগত রীতির দ্বারা তোমরা ঈশ্বরের আদেশ মূল্যহীন করেছ৷
7 তোমরা হলে ভণ্ড! ভাববাদী যিশাইয় তোমাদের বিষয়ে ঠিকই ভাববাণী করেছেন:
8 ‘এই লোকগুলো মুখেই আমায় সম্মান করে, কিন্তু তাদের অন্তর আমার থেকে অনেক দূরে থাকে৷
9 এরা আমার য়ে উপাসনা করে তা মিথ্যা, কারণ এরা য়ে শিক্ষা দেয় তা মানুষের তৈরী কতকগুলি নিয়ম মাত্র৷'”
10 এরপর যীশু লোকদের তাঁর কাছে ডেকে বললেন, ‘আমি যা বলি তা শোন ও তা বুঝে দেখ৷
11 মানুষ যা খায় তা মানুষকে অশুচি করে না৷ কিন্তু মুখের ভেতর থেকে যা বের হয়ে আসে, তাইমানুষকে অশুচি করে৷’
12 তখন যীশুর শিষ্যরা তাঁর কাছে এসে বললেন, ‘আপনি কি জানেন ফরীশীরা আপনার এই কথা শুনে অপমান বোধ করছেন?’
13 এর উত্তরে যীশু বললেন, ‘য়ে চারাগুলি আমার স্বর্গের পিতা লাগাননি, সেগুলি উপড়ে ফেলা হবে৷
14 তাই ওদের কথা বাদ দাও৷ ওরা নিজেরা অন্ধ, ওরা আবার অন্য অন্ধদের পথ দেখাচ্ছে৷ দেখ, অন্ধ যদি অন্ধকে পথ দেখাতে যায়, তবে দুজনেইগর্তে পড়বে৷’
15 তখন পিতর যীশুকে বললেন, ‘আপনি যা বললেন, তার অর্থ আমাদের বুঝিয়ে দিন৷’
16 যীশু বললেন, ‘তোমরাও কি এখনও বুঝতে পারছ না?
17 তোমরা কি বোঝ না য়ে, যা কিছু মুখের মধ্যে যায় তা উদরে গিয়ে পৌঁছায় ও পরে তা বেরিয়ে পায়খানায় পড়ে৷
18 কিন্তুমুখেরমধ্য থেকে যা বের হয় তা মানুষের অন্তর থেকেই বের হয় আর তাই মানুষকে অশুচি করে তোলে৷
19 আমি একথা বলছি কারণ মানুষের অন্তর থেকেইসমস্ত মন্দচিন্তা, নরহত্যা, ব্যভিচার, য়ৌনপাপ, চুরি, মিথ্যা সাক্ষ্য ও নিন্দা বার হয়৷
20 এসবইমানুষকে অশুচি করে, কিন্তু হাত না ধুয়ে খেলে মানুষ অশুচি হয় না৷’

মথি 15:1-20

এই সাক্ষাত্কারের মধ্যে, ঈসা আল মসীহ (পিবিইউএইচ) উল্লেখ করলেন যে আমরা আমাদের ধর্মীয় বাধ্যবাধকতাগুলো ঈশ্বরের বার্তার পরিবর্তে ‘মানবীয় পরম্পরা সমূহ’ থেকে দ্রুত গড়ে তুলি I ভাববাদীর সময়ে, যিহূদি নেতারা আল্লাহর সামনে তাদের পিতামাতাদের সাহায্য করার পরিবর্তে ধর্মীয় কারণে অর্থ প্রদানের দ্বারা বৃদ্ধ পিতামাতাদের প্রতি যত্ন নেওয়ার তাদের বাধ্যবাধকতাকে অগ্রাহ্য করেছিল I

আজ অভ্যন্তরীণ পরিচ্ছনতা সম্পর্কে আমরা একই সমস্যার সম্মুখীন হই I তবে আল্লাহ আমাদের হৃদয় থেকে নির্গত অপরিচ্ছনতা সম্পর্কে খুবই চিন্তিত I এই অপরিচ্ছনতা বিচারের দিনে আমাদের দণ্ডাজ্ঞায় প্রতিফল দেবে যদি না এটিকে  শুচিশুদ্ধ করা হয় I

বাইরে সুন্দর কিন্তু ভেতরে দুষ্টতায় পরিপূর্ণ

  25 ‘ধিক্ ব্যবস্থার শিক্ষক ও ফরীশীর দল, তোমরা ভণ্ড! তোমরা থালা বাটির বাইরেটা পরিষ্কার করে থাক, কিন্তু ভেতরটা থাকে লোভ ও আত্মতোষণে ভরা৷
26 অন্ধ ফরীশী! প্রথমে তোমাদের পেয়ালার ভেতরটা পরিষ্কার কর, তাহলে গোটা পেয়ালার ভেতরে ও বাইরে উভয় দিকই পরিষ্কার হবে৷
27 ‘ধিক্ ব্যবস্থার শিক্ষক ও ফরীশীর দল, তোমরা ভণ্ড! তোমরা চুনকাম করা কবরের মতো, যার বাইরেটা দেখতে খুব সুন্দর, কিন্তু ভেতরে মরা মানুষের হাড়গোড় ও সব রকমের পচা জিনিস রয়েছে৷
28 তোমরা ঠিক সেইরকম, বাইরের লোকদের চোখে ধার্মিক, কিন্তু ভেতরে ভণ্ডামী ও দুষ্টতায় পূর্ণ৷

মথি 23:25-28

আমরা যা সমস্ত কিছু দেখেছি ঈসা আল মসীহ (পিবিইউএইচ) সেই সম্বন্ধে বলছেন I ঈশ্বরের বিশ্বাসীদের মধ্যে বাহ্যিক পরিচ্ছনতা অনুসরণ করা একেবারেই সাধারণ হতে পারে, তবে অনেকে এখনও ভেতরে লোভ এবং প্রবৃত্তিতে পরিপূর্ণ – এমনকি তারাও যারা ধর্মীয়ভাবে গুরুত্বপূর্ণ I অভ্যন্তরীণ পরিচ্ছনতা প্রয়োজনীয় – তবে এটি অনেক বেশি কঠিন I আল্লাহ খুব সতর্কতার সঙ্গে আমাদের অভ্যন্তরীণ পরিচ্ছনতা বিচার করবেন I এই বিষয়টি নিজেই উত্থাপন করে: কিভাবে আমরা আমাদের হৃদয় পরিষ্কার করব যাতে করে আমরা বিচারের দিনে স্বর্গ রাজ্যে প্রবেশ করতে পারি? উত্তরের জন্য আমরা ইঞ্জিলে চলতে থাকি I

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *