ঈসা আল মসীহ শিক্ষা দেন … স্বর্গে প্রবেশের উপর

সুরাহ আল-কাহফ (সুরাহ 18 – গুহা) ঘোষণা করে যে যাদের কাছে ‘ধার্মিক কাজ’ আছে তারা স্বর্গ প্রবেশ করবে:

 যারা বিশ্বাস স্থাপন করে ও সৎকর্ম সম্পাদন করে, তাদের অভ্যর্থনার জন্যে আছে জান্নাতুল ফেরদাউস।

সুরাহ আল-কাহফ 18:107

প্রকৃতপক্ষে, সুরাহ-আল-জাথিয়াহ (সুরাহ 45 – ঘুপসি) পুনরুক্তি করে যে যাদের কাছে ‘ধার্মিক কাজ’ আছে তাদের স্বর্গের করুণার মধ্যে প্রবেশ পাবে I

 যারা বিশ্বাস স্থাপন করেছে ও সৎকর্ম করেছে, তাদেরকে তাদের পালনকর্তা স্বীয় রহমতে দাখিল করবেন। এটাই প্রকাশ্য সাফল্য।

সুরাহ আল-জাথিয়াহ 45:30

এক দিন আকাশে (স্বর্গে) প্রবেশ করতে আপনি কি আশা করেন? স্বর্গে প্রবেশ করতে আপনার এবং আমার জন্য কি দরকার? ঈসা আল মসীহকে একবার ভাববাদী মশির (পিবিইউএইচ) শরিয়া আইনের ব্যাখ্যায় শিক্ষিত একজন যিহূদি ‘বিষেশজ্ঞর’ দ্বারা এই প্রশ্নটিকে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল I ঈসা আল মসীহ তাকে এক অপ্রত্যাশিত উত্তর দিলেন I নিচে ইঞ্জিলের মধ্যে কথোপকথনটিকে লিপিবদ্ধ করা হয়েছে I ঈসার দৃষ্টান্তকে উপলব্ধি করতে হলে আপনাকে অবশ্যই বুঝতে হবে সেই দিনে যিহূদিদের দ্বারা ‘শমরিয়দেরকে’ অবজ্ঞা করা হত পরিবর্তে, শমরিয়রা যিহূদিদের ঘৃণা করত I শমরিয় এবং যিহূদিদের মধ্যে তখনকার দিনের ঘৃণা আজকের দিনের ইস্রায়েলীয়দের এবং পলেস্তিনীয়দের মধ্যে, বা সুন্নি এবং শিয়াদের মধ্যে অনুরূপ হতে পারে I     

অনন্ত জীবন এবং উত্তম প্রতিবেশীর দৃষ্টান্ত

25 এরপর একজন ব্যবস্থার শিক্ষক যীশুকে পরীক্ষার ছলে জিজ্ঞাসা করল, ‘গুরু, অনন্ত জীবন লাভ করার জন্য আমায় কি করতে হবে?’
26 যীশু তাকে বললেন, ‘বিধি-ব্যবস্থায় এ বিষয়ে কি লেখা আছে? সেখানে তুমি কি পড়েছ?’
27 সে জবাব দিল, ‘তোমার সমস্ত অন্তর, মন, প্রাণ ও শক্তি দিয়ে অবশ্যই তোমার প্রভু ঈশ্বরকে ভালবাসো৷’আর ‘তোমার প্রতিবেশীকে নিজের মতো ভালবাসো৷”
28 তখন যীশু তাকে বললেন, ‘তুমি ঠিক উত্তরই দিয়েছ; ঐ সবই কর, তাহলে অনন্ত জীবন লাভ করবে৷’
29 কিন্তু সে নিজেকে ধার্মিক দেখাতে চেয়ে যীশুকে জিজ্ঞেস করল, ‘আমার প্রতিবেশী কে?’
30 এর উত্তরে যীশু বললেন, ‘একজন লোক জেরুশালেম থেকে যিরীহোর দিকে নেমে যাচ্ছিল, পথে সে ডাকাতের হাতে ধরা পড়ল৷ তারা লোকটির জামা কাপড় খুলে নিয়ে তাকে মারধোর করে আধমরা অবস্থায় সেখানে ফেলে রেখে চলে গেল৷
31 ঘটনাক্রমে সেই পথ দিয়ে একজন ইহুদী যাজক যাচ্ছিল, যাজক তাকে দেখতে পেয়ে পথের অন্য ধার দিয়ে চলে গেল৷
32 সেই পথে এরপর একজন লেবীয়এল৷ তাকে দেখে সেও পথের অন্য ধার দিয়ে চলে গেল৷
33 কিন্তু একজন শমরীয় ঐ পথে য়েতে য়েতে সেই লোকটির কাছাকাছি এল৷ লোকটিকে দেখে তার মনে মমতা হল৷
34 সে ঐ লোকটির কাছে গিয়ে তার ক্ষতস্থান দ্রাক্ষারস দিয়ে ধুয়ে তাতে তেল ঢেলে বেঁধে দিল৷ এরপর সেই শমরীয় লোকটিকে তার নিজের গাধার ওপর চাপিয়ে একটি সরাইখানায় নিয়ে এসে তার সেবা যত্ন করল৷
35 পরের দিন সেই শমরীয় দুটি রৌপ্যমুদ্রা বের করে সরাইখানার মালিককে দিয়ে বলল, ‘এই লোকটির যত্ন করবেন আর আপনি যদি এর চেয়ে বেশী খরচ করেন, তবে আমি ফিরে এসে আপনাকে তা শোধ করে দেব৷’
36 এখন বল, ‘এই তিনজনের মধ্যে সেই ডাকাত দলের হাতে পড়া লোকটির প্রকৃত প্রতিবেশী কে?’
37 সে বলল, ‘য়ে লোকটি তার প্রতি দযা করল৷’তখন যীশু তাকে বললেন, ‘সে য়েমন করল, যাও তুমি গিয়ে তেমন কর৷’

লুক 10:25-37

যখন ব্যবস্থার বিশেষজ্ঞ উত্তর দিলেন ‘তোমার ঈশ্বরকে প্রেম করবে’ এবংপ্রতিবেশীকে নিজের মতন প্রেম করবে’ তখন তিনি মশির (পিবইউএইচ) শরিয়া আইন থেকে উদ্ধৃত করছিলেন I ঈসা ইঙ্গিত দিলেন যে তিনি নির্ভুল উত্তর দিয়েছেন তবে তিনি এই প্রশ্নটি উত্থাপন করলেন যে তার উত্তম প্রতিবেশী কে I তাই ঈসা আল মসীহ (পিবিইউএইচ) এই দৃষ্টান্তটি বললেন I

দৃষ্টান্তটির মধ্যে আমরা আশা করি যে ধার্মিক লোকেরা (যাজক এবং লেবীয়) লোকটিকে সাহায্য করবে যাকে প্রহার করা হয়েছিল, কিন্তু তারা তাকে উপেক্ষা করে এবং অসহায় অবস্থায় তাকে ছেড়ে দেয় I তাদের ধর্ম তাদেরকে উত্তম প্রতিবেশীতে পরিণত করে নি I পরিবর্তে, যে ব্যক্তিকে আমরা একদমই আশা করি নি, যাকে আমরা তার শত্রু বলে মনে করি – সে একজন যে প্রহৃত লোকটিকে সাহায্য করে I

ঈসা আল মসীহ আজ্ঞা দেন “যাও এবং অনুরূপ করI আমি আপনার সম্বন্ধে জানি না, কিন্তু এই দৃষ্টান্তটির প্রতি আমার প্রথম প্রতিক্রিয়া ছিল আমি অবশ্যই এটিকে ভুল বুঝে থাকব, এবং তারপরে এটিকে উপেক্ষা করতে কেবল আমি প্রলুব্ধ হলাম I

তবে চারিদিকে যে সমস্ত লড়াই, হত্যা, বেদনা এবং দুর্দশা ঘটছে সে সম্পর্কে চিন্তা করুন কারণ প্রচুর সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ এই অজ্ঞাটিকে উপেক্ষা করে I আমরা যদি এই শমরিয়র মতন বাস করতাম তবে আমাদের শহরগুলো লড়াইয়ে ভরে যাওয়ার বদলে শান্তিপূর্ণ হত I এবং এছাড়া আমাদেরও কাছে স্বর্গে প্রবেশ করার একটি নিশ্চয়তা থাকত I এটি যেমন দাঁড়িয়ে আছে, খুব কম লোকেরই স্বর্গে প্রবেশের নিশ্চয়তা রয়েছে – এমনকি যদিও তারা খুব ধার্মিকভাবে জীবন যাপন করে যেমন ব্যবস্থার বিশেষজ্ঞ করেছিলেন যিনি ঈসার (পিবিইউএইচ) সঙ্গে কথা বলছিলেন I

আপনার কাছে কি অনন্ত জীবনের নিশ্চয়তা আছে?

তবে এই ধরণের প্রতিবেশী হওয়া এমন কি অসম্ভব? কিভাবে আমরা এটিকে করতে পারি? আমরা যদি সৎ হই আমাদের স্বীকার করতে হবে যে তার আজ্ঞা অনুসারে একজন প্রতিবেশী হওয়া অত্যন্ত কঠিন কাজ I 

আর এখানে আমরা আশার একটি ঝলক দেখতে পারি যখন দেখি যে আমরা এটি করতে পারি না আমরা হই ‘আত্মায় দীন’ – যেটিকে ঈসা আল মসীহ (পিবিইউএইচ) আবারও শিক্ষা দিয়েছিলেন যা ‘ঈশ্বরের রাজ্যে’ প্রবেশ করার জন্য দরকার ছিল I    

এই দৃষ্টান্তটিকে কেবলমাত্র উপেক্ষা করার বদলে, বা অজুহাত করে সরিয়ে  রেখে, আমাদের এটিকে নিজেরা পরীক্ষা করা এবং স্বীকার করা উচিত – এটি অত্যন্ত কঠিন I তখন, আমাদের অসহায়তার মধ্যে আল্লাহর কাছে সাহায্য চাইতে   পারি I পাহাড়ের উপদেশের মধ্যে যেমনভাবে ঈসা আল মসীহ (পিবিইউএইচ) প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন I   

7 ‘চাইতে থাক, তোমাদের দেওয়া হবে৷ খুঁজতে থাক, পাবে৷ দরজায় ধাক্কা দিতে থাক, তোমাদের জন্য দরজা খুলে দেওয়া হবে৷
8 কারণ য়ে চাইতে থাকে সে পায়, য়ে খুঁজতে থাকে সে খুঁজে পায়, আর য়ে দরজায় ধাক্কা দিতে থাকে তার জন্য দরজা খুলে দেওয়া হয়৷
9 তোমার ছেলে যদি তোমার কাছে রুটি চায়, তবে তোমাদের মধ্যে এমন কেউ আছে কি, য়ে তার সন্তানকে রুটির বদলে পাথরের টুকরো দেবে?
10 যদি সে একটা মাছ চায় তবে বাবা কি তার হাতে একটা সাপ তুলে দেবে? নিশ্চয় না৷
11 তোমরা মন্দ হয়েও যদি তোমাদের সন্তানদের ভাল ভাল জিনিস দিতে জানো, তবে তোমাদের স্বর্গের পিতা ঈশ্বরের কাছে যাঁরা চায়, তাদের তিনি নিশ্চয়ই উত্‌কৃষ্ট জিনিস দেবেন৷  

মথি 7:7-11

অতএব আমাদের কাছে মসীহর অনুমতি আছে সাহায্য চাওয়ার – আর সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে I হয়ত আল্লাহর কাছে এর মতন করে এমনকিছু প্রার্থনা করা:

স্বর্গস্থ পিতা I আপনি ভাববাদীদের পাঠিয়েছেন আমাদের সোজাভাবে শিক্ষা  দিতে I ঈসা আল মসীহ (পিবিইউএইচ) শিখিয়েছেন যে আমার প্রেম করা এবং এমনকি তাদেরকেও সাহায্য করা দরকার যারা নিজেদেরকে আমার শত্রু বলে বিবেচনা করে, এবং এটিকে করা ছাড়া আমি অনন্ত জীবন পেতে পারি না I তবে আমি দেখি যে আমার পক্ষে এটি করা অসম্ভব I দয়া করে আমাকে সাহায্য করুন এবং আমাকে পরিবর্তন করুন যাতে করে আমি এই পথটিকে অনুসরণ করতে পারি এবং অনন্ত জীবন পেতে পারি I আমার প্রতি করুনাময়  হোন যে একজন পাপী I 

মসীহর উৎসাহ এবং অনুপ্রেরণায় আমি আপনার কাছে প্রার্থনা করছি ঈশ্বর 

(নির্দিষ্ট শব্দগুলো গুরুত্বপূর্ণ নয় – এটি হ’ল যে আমরা আমাদের প্রয়োজন স্বীকার করি এবং দয়ার জন্য যাচনা করি)

এছাড়া ইঞ্জিল লিপিবদ্ধ করে যখন একজন শমরিয়র সঙ্গে ঈসা আল মসীহর দেখা হয় I একজন ভাববাদী কিভাবে একজন ব্যক্তির সঙ্গে ব্যবহার করতে পারেন যাকে তার লোকেদের (যিহূদিরা) দ্বারা এক ঘৃণিত শত্রু বলে বিবেচনা করা হত I শমরিয়টির সঙ্গে কি ঘটেছিল, এবং আমাদের যে ধরণের প্রতিবেশী হওয়ার দরকার তা হতে সাহায্য করতে আমরা কি শিখতে পারি, পরবর্তীতে আমরা দেখব I 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *